Blog Archives

Exclusive Interview of Humayun Ahmed

 

Exclusive Interview of Legendary Bengali Writer, Director Humayun Ahmed Before his death at New York interview taken by Mazharul Islam

 

Advertisements

Legendary Bengali Writer Humayun Ahmed is No More with Us!!


Dhaka July 19 (bdnews24.com— Popular Bengali fiction writer Humayun Ahmed, 64, has died in a New York hospital after a nine-month battle against colon cancer.

Dr Abdul Momen, the Bangladesh ambassador to the UN, told bdnews24.com that he had passed away at 11:30pm Thursday Bangladesh time at Bellevue Hospital.

Arriving in New York on Sept 14 last year, he had two major surgeries on his colon since June 12 at Bellevue. He had earlier gone through 12 chemotherapy cycles at the Memorial Sloan-Kettering Cancer Centre.

Wife Meher Afroz Shaon, younger brother Mohammad Zafar Iqbal and publisher Mazharul Islam were at the Bellevue Hospital at the time of death.

Born in Mymensingh in 1948, he studied chemistry at the Dhaka University and later taught chemistry in his alma mater.

He left teaching when he became a fulltime writer and filmmaker.

Winner of Bangla Academy Award in 1981, Ekushey Padak in 1994 and three National Film Awards (Best Story in 1993, Best Film 1994 and Best Script in 1994), Humayun continued writing even when he was being treated in New York.

On Jan 13, the government gave the writer a diplomatic position –Senior Special Adviser — at the country’s Permanent Mission at the United Nations.

বিশিষ্ট রন্ধনশিল্পী, পুষ্টিবিদ অধ্যাপিকা সিদ্দীকা কবির শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন

বিশিষ্ট রন্ধনশিল্পী, পুষ্টিবিদ অধ্যাপিকা সিদ্দীকা কবির শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন

প্রখ্যাত পুষ্টিবিদ সিদ্দিকা কবীর স্কয়ার হাসপাতালে চিকিত্সাধীন অবস্থায় আজ দুপুর সোয়া ১২টায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন (ইন্না লিল্লাহি…রাজিউন)।

 

সিদ্দিকা কবীর ১৯৩১ সালের ৭ মে ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৫৬ সালে অঙ্ক বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন। ১৯৫৬ সালে তিনি ইডেন গার্লস কলেজে অঙ্কের প্রভাষক পদে যোগদান করেন। এরপর ১৯৬১ সালে ফোর্ড ফাউন্ডেশনের স্কলারশিপ নিয়ে ওকলাহোমা স্টেট ইউনিভার্সিটি থেকে খাদ্য ও পুষ্টি এবং প্রাতিষ্ঠানিক ব্যবস্থাপনা বিষয়ে এমএস ডিগ্রি লাভের পর ১৯৬৩ সালে ঢাকায় গার্হস্থ্য অর্থনীতি মহাবিদ্যালয়ে প্রভাষক পদে যোগদান করেন।

খাদ্য ও পুষ্টি এবং প্রাতিষ্ঠানিক ব্যবস্থাপনা বিষয়ে দীর্ঘকালের অধ্যাপনায় তিনি খাদ্য ও পুষ্টি সম্বন্ধে যথেষ্ট অভিজ্ঞতা অর্জন করেন।
তাঁর লেখা পুষ্টি ও রান্নাবিষয়ক গ্রন্থগুলো ব্যাপক সমাদৃত। তাঁর উল্লেখযোগ্য গ্রন্থের মধ্যে রয়েছে—রান্না খাদ্য পুষ্টি, খাবার-দাবার কড়চা, পুষ্টি ও খাদ্য ব্যবস্থা, বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী রান্না (সম্পাদনা) ও Bangladeshi Curry Cook Book.
টেলিভিশনের জন্য তৈরি তাঁর ‘সিদ্দিকা কবীর’স রেসিপি’ রান্না ও পুষ্টি বিষয়ে ব্যাপক জনপ্রিয় একটি অনুষ্ঠান।
পুষ্টি ও রান্নায় অবদানের জন্য তিনি ‘উইম্যান অব ইয়ার’ (ওয়েব) ‘শেলটেক’ ও ‘অনন্যা শীর্ষ দশ’-এর স্বীকৃতি পান।

%d bloggers like this: